ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার কুশনা গ্রামের দরিদ্র পরিবারের সন্তান রুহানী আক্তারের মেডিকেল ভর্তি হওয়ার স্বপ্ন পুরণ হচ্ছে। ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু তার ভর্তির দায়িত্ব নিয়েছেন।

চার ভাই বোনের মধ্যে দ্বিতীয় রুহানী আক্তার। ছোটবেলা থেকেই তার ডাক্তার হওয়ার ইচ্ছে। মেধাবী হওয়ার কারণে পিইসিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিও পায় সে। পরবর্তি পরীক্ষাগুলোতেও সে কৃতিত্বের সাথে উত্তির্ণ হয়। এবার ময়মনসিংহ মেডিক্যালে চান্স পেয়েছে রুহানী। কিন্তু পরিবারের সামর্থ নেই তাকে পড়ালেখা করানোর।

রুহানীর ব্যাপারে জানতে পেরে ঝিনাইদহ পৌরসভার মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু তার পাশে দাঁড়ান। মঙ্গলবার রুহানীকে তার দপ্তরে ডেকে পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার আশ্বাস দেন সাইদুল করিম মিন্টু।

রুহানী কোটচাদপুর উপজেলার কুশনা গ্রামের রুহুল আমীনের মেয়ে । রুহানীর শিক্ষিকা আসমা খাতুন জানান, সে ছোট বেলা থেকেইে মেধাবী। উপস্থিত বক্তৃতায় সে খুলনা বিভাগে তৃতীয় হয়েছিল। এছাড়া স্কুলে পড়াশুনার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলায়, বক্তৃতায়, কবিতা আবৃত্তিতেও সে বেশ পারদর্শী। আমারা সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি ওর পাশে থাকার ।

রুহানী আক্তার জানান, আমার দাদী ২০০৩ সালে অপারেশন থিয়েটারে মারা যান। সেই গল্প পরিবারের মুখে শুনে আমি ছোট বেলা থেকেই ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখি। মেরিট লিস্টে সারা বাংলাদেশের মধ্যে ৮৮০ সিরিয়ালে রয়েছি। তিনি আরো বলেন, আমার স্বপ্ন ডাক্তার হয়ে আমি দেশের সেবা করবো। আমার মা, বোন ও শিক্ষকদের অনুপ্রেরণাতেই আজ আমি এখানে আসতে পেরেছি। ঝিনাইদহ মেয়রের এমন সাহযোগীতার কথা আমি কোনদিনও ভুলবো না। আমি ও আমার পরিবার তার কাছে কৃতজ্ঞ।

ঝিনাইদহ মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু বলেন, সমাজের পিছিয়ে পড়াদের সাহায্য করা আমার একান্ত ইচ্ছা। আমি রুহানীর মেডিক্যাল ভর্তি থেকে শুরু করে বই কেনা এমনকি হলে থাকার জন্য সিটের ব্যবস্থাও করে দেব। আর ঝিনাইদহ পর্যন্ত আসা যাওয়ার ফ্রী গাড়ী সেবা পাবে সে।